মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কৃষি তথ্য সেবা

সম্পদের সীমাবদ্ধতা, শিক্ষার অভাব সর্বোপরি প্রাকৃতিক দূর্যোগের লবনাক্ততার প্রভাব থাকা সত্ত্বেও খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণতা অর্জন করা সম্ভব হয়েছে। কুল, ডাল, তেল, সবজি ইত্যাদি ফসল উৎপাদন ব্যপক ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ডুমুরিয়ার সকল শ্রেণীর কৃষকের চাহিদা মোতাবেক বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় প্রযুক্তির উপর প্রদর্শনী স্থাপন,  মাঠদিবস, কৃষক-কৃষাণী প্রশিক্ষণ, চাষী র‌্যালি, সময়োপযোগী লিফলেট বিতরণ, উদ্বুদ্ধকরণ ভ্রমন ইত্যাদি সম্প্রসারণ কর্মকান্ড পরিচালনা করছে। রোপা আমন ধান চাষে খরা মোকাবেলায় সম্পূরক সেচ প্রদানে অডউ প্রযুক্তির ওপর প্রদর্শনী সহ সেচ উপকরণ কৃষকদের  মাঝে সরবরাহ করা হচ্ছে। এছাড়াও চাষী পর্যায়ে উন্নত মানের বীজ উৎপাদন ও সংরক্ষণ ও বিতরণ কর্মসূচীর মাধ্যমে উন্নত মানের বীজের চাহিদা স্থানীয় ভাবে পূরণ করার কার্যক্রম গ্রহন করা হয়েছে। উপকূলীয় এলাকায় ৭ টি জেলায় লবনাক্ত ও পতিত জমিতে কৃষি সম্প্রসারণ কর্মসূচীর আওতায় আউশ ও সামার টমেটো এসব কর্মসূচী সুষ্ঠভাবে বাসত্মবায়নে কৃষি উন্নয়নের পাশাপাশি কৃষকদের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন ঘটবে এবং মহিলাদের কৃষি কাজে তথা আর্থ সামাজিক উন্নয়নের সম্পৃক্ত করা সম্ভব হয়েছে।

ব্যাপক কৃষি কর্মকান্ড ও কৃষি কর্মীদের অক্লামত্ম প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ আজ বিশ্বের কনিষ্ঠতম খাদ্য স্বয়ং সম্পূর্ণ দেশ হিসাবে খ্যাতি লাভ করেছে। এ সুনাম কৃষি কর্মীদের দক্ষতা উন্নয়নে অব্যাহত রাখতে আরো গতিশীল ও উন্নয়নমুখী কর্মসূচী প্রনয়ণ করতে হবে।